wapkiz.com

চালকহীন গাড়িতে চেপে বসেছে মানুষ, আর সে গাড়ি শাঁই শাঁই করে ছুটে যাচ্ছে গন্তব্যে— এটা আর এখন কোনো কল্পকাহিনি নয়। গাড়ি
যে উড়োজাহাজের মতো উড়তে পারে, বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবনী গুণ আকাশের গায়ে এমন প্রমাণ রেখেছে। এখন চেষ্টা চলছে যাতায়াতে হরদম তা কাজে লাগাতে। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে গাড়িতে যোগাযোগের ক্ষেত্রে এমন পরিবর্তন চোখে পড়বে।

যুক্তরাষ্ট্রের চিপ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইনটেলের ড্রোন বিভাগের প্রধান অনিল নানদুরি বলেছেন, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে উড়ুক্কু স্বয়ংক্রিয় গাড়ির দেখা মিলবে।

প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট সিনেটকে দেওয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে নানদুরি বলেছেন, প্রযুক্তির ভবিষ্যৎ হিসেবে স্বয়ংক্রিয় উড়ুক্কু গাড়ি হবে যুগান্তকারী উদ্ভাবন। আগামী পাঁচ বছরে উড়ুক্কু গাড়ি সবার নাগালে না পৌঁছালেও আকাশে এসব গাড়ি উড়তে দেখা যাবে।

ড্রোন এখন বিনোদন, নজরদারি বা পণ্য পরিবহনের মতো নানা কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে। এ প্রযুক্তি ব্যবহার করেই ভূমির ত্রিমাত্রিক যানজট সমস্যার সমাধান করবে উড়ুক্কু গাড়ি। আগামী এক দশকের মধ্যেই শহরের যানজট দূর করার জন্য উড়ুক্কু ট্যাক্সি সার্ভিস চালু হয়ে যাবে।

অবশ্য উড়ুক্কু গাড়িতে যানজট সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া গেলেও এর নিরাপত্তা ও আরামদায়ক ব্যবস্থা নিয়ে সংশয় থাকছে বলে মনে করেন নানদুরি। উড়ুক্কু গাড়িকে সমস্যার চেয়ে সম্ভাবনা বলেই বেশি দেখছেন তিনি। ইনটেলের ওই প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞের মতে, আন্ডারগ্রাউন্ড বা মাটির নিচে টানেল তৈরি করে যোগাযোগব্যবস্থা চালুর চেয়ে আকাশে উড়ুক্কু যানের মাধ্যমে যোগাযোগব্যবস্থা চালু করার খরচ কম। তাই এ ধরনের সেবার গ্রহণযোগ্যতা বাড়তে পারে।